ট্রাভেল বাংলাদেশ: আপনার ভ্রমণ বন্ধু - GoArif

ট্রাভেল বাংলাদেশ: আপনার ভ্রমণ বন্ধু

ট্রাভেল বাংলাদেশ আপনার ভ্রমণ বন্ধু “GoArif” । আমি আরিফ হোসেন (Arif Hossain) আপনাদের ভ্রমণ বন্ধু ঘুরে বেড়াই বাংলাদেশের আনাচে কানাচে। ভ্রমণ করি বাংলাদেশের বিখ্যাত এবং দর্শনীয় স্থান গুলোতে।

এছাড়া খুঁজে বের করার চেষ্টা করি বাংলাদেশের কম জনপ্রিয় দর্শনীয় স্থান এবং প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন গুলো। যাতে এসব কম জনপ্রিয় স্থান গুলোও আপনাদের কাছে ধিরে ধিরে জনপ্রিয়তা লাভ করে।

ট্রাভেল বাংলাদেশ - GoArif
ট্রাভেল বাংলাদেশ

কম জনপ্রিয় স্থান এবং প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন খুঁজে বেড়াই কেন?

আপনি জানেন কি? বাংলাদেশে রয়েছে বহু না জানা কম জনপ্রিয় স্থান এবং প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন। যে গুলো জনপ্রিয়তা পেলে বাংলাদেশের ইতিহাস-ঐতিহ্য কে আরও সমৃদ্ধ করবে এবং বাংলাদেশ কে বিশ্বের কাছে আরও বৃহৎ পরিসরে পরিচিতি অর্জন করার সুযোগ করে দিবে। পাশাপাশি বিদেশি পর্যটকদের বাংলাদেশ ভ্রমণে আগ্রহ বাড়াবে।

আমি ভ্রমণ শুরু করেছি ২০০৯ সাল থেকে। তবে ভ্রমণ নিয়ে লেখালেখি করছি ২০১৮ সাল থেকে।

শুরু থেকেই একটা বিষয় খেয়াল করছি যে, আমরা বাংলাদেশের যে সব স্থান গুলো ইতিমধ্যে জনপ্রিয়তা লাভ করেছে… সে গুলো নিয়ে লিখছি এবং প্রমোট করার চেষ্টা করছি।

কিন্তু বাংলাদেশে আরও বহু দর্শনীয় স্থান রয়েছে যে গুলো সম্পর্কে মানুষ তেমন জানে না। আবার গুগল বা অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিন অথবা সোশ্যাল মিডিয়াতেও সে স্থান বা প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন নিয়ে তেমন কোন তথ্য নেই!

ভ্রমণ পিপাসু বন্ধুরা বা যারা ট্রাভেল করতে ভালবাসেন তারা জানলে হয়তো সে স্থানে ছুটে যেতেন।

ট্রাভেল বাংলাদেশ অথবা বাংলাদেশ ভ্রমণ করা নিয়ে আমি শুরু থেকেই কাজ করে আসছি। সামনেও বাংলাদেশ কে প্রমোট করার জন্য ভ্রমণ সেক্টরে যা যা করা প্রয়োজন আমি আমার সাধ্যমত চেষ্টা করে যাব।

আমি বাংলাদেশ কে ভালবাসি। আপনিও ভালবাসেন নিশ্চয়ই। যদি আপনি ভ্রমণ নিয়ে লেখালেখি করে থাকেন, তাহলে আমি আপনাকে অনুরোধ করব: বিখ্যাত এবং দর্শনীয় স্থান গুলো নিয়ে লেখালেখি, ভিডিও বা ছবির মাধ্যমে প্রচার করার পাশাপাশি অন্যান্য কম জনপ্রিয় এবং প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন নিয়ে লিখুন, ভিডিও করুণ, ছবি তুলে হলেও প্রচার করুণ।

ট্রাভেল বাংলাদেশ

আমার একটি বাস্তব ভ্রমণ কাহিনী বলছি –

চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর উপজেলার লুধুয়া গ্রামে একটি জমিদার বাড়ী রয়েছে, নামঃ লুধুয়া জমিদার বাড়ি

লুধুয়া জমিদার বাড়িটি প্রায় ৩৫০ বছরের পুরনো। জমিদার বাড়িটি এখনও রয়েছে। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে, লুধুয়া গ্রামের অনেকেই জানেন না এই লুধুয়া গ্রামেই ৩৫০ বছরের পুরনো জমিদার বাড়ি রয়েছে!

আমি সরজমিনে ভ্রমণে গিয়ে তাই দেখেছি। এটা কি লুধুয়া গ্রামের মানুষের জন্য দুঃখজনক বা দুর্ভাগ্যজনক নয়?

আমি বলব এটা অবশ্যই দুর্ভাগ্যজনক। তবে, এর দায় কিছুটা হলেও আমরা যারা প্রতিনিয়ত বিভিন্ন স্থানে ভ্রমণ করি এবং প্রতিবেদন করে থাকি তাদেরও!

কিন্তু আমাদের উচিত যতটা সম্ভব বিখ্যাত দর্শনীয় স্থান ছাড়াও কম বিখ্যাত স্থান গুলো নিয়ে প্রতিবেদন বা যে কোন উপায়ে তুলে ধরা।

আশাকরি এ বিষয়ে ট্রাভেলারগন সজাগ দৃষ্টি রাখবেন।

বাংলাদেশ ভ্রমণ

বাংলাদেশ ভ্রমণে আমি ইতিমধ্যে যে সব স্থানে ভ্রমণ করেছি তার লিস্ট নিচে দেয়া হলঃ

উপরের জেলা সমূহের ভিতরে বিখ্যাত এবং কম জনপ্রিয় অনেক গুলো স্থান রয়েছে। সামনে আরও ভ্রমণ স্থান সম্পর্কে তথ্য আসবে।

ভ্রমণ টিপস নিয়ে ইতিমধ্যে প্রকাশিত আর্টিকেল গুলোর কিছু নিচে দেয়া হল… সামনে আরও ভ্রমণ টিপস প্রকাশিত হবে। আশাকরি ভ্রমণ টিপস গুলো আপনাদের ভ্রমণে কাজে আসবে।

ভ্রমণ ফটোগ্রাফি

আমার ভ্রমণ ফটোগ্রাফি দেখতে পারেন। 🙂

ট্রাভেল বাংলাদেশ নিয়ে শেষ কথা

আসুন আমরা বাংলাদেশ কে ভালবাসি এবং বাংলাদেশ কে বিশ্বের কাছে তুলে ধরি। দেখিয়েদেই যে আমাদের এই প্রানের বাংলাদেশে কত দর্শনীয় স্থান এবং প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে।

বাংলাদেশের বিখ্যাত দর্শনীয় স্থান গুলোর পাশাপাশি কম জনপ্রিয় স্থান বা স্থাপনা নিয়ে লেখালেখি করি এবং বিভিন্ন মাধ্যমে সেগুলো কে প্রাচার করি।

ট্রাভেল বাংলাদেশ: বাংলাদেশ ভ্রমণে সবাইকে স্বাগতম। বিদায় নিচ্ছি আপনার ভ্রমণ বন্ধু। হ্যাপি ট্রাভেলিং…


আমার ফেসবুক: GoArif

GoArif.com ওয়েবসাইটের কোথাও কোন ভুল বা অসংগতি আপনার দৃষ্টিগোচর হলে তা অনুগ্রহ করে আমাকে অবহিত করুন, যেন আমি দ্রুত সংশোধন করতে পারি।
আরিফ হোসেন

আমি একজন ভ্রমণ পিপাসু। ভ্রমণ করতে আমার খুবই ভালো লাগে। তাইতো সময় পেলে ভ্রমণে ছুটে যাই। কোন ভ্রমণই আমার শেষ হয়ে শেষ হয় না। বারংবার আমার সেই স্থানে ছুটে যেতে ইচ্ছে করে। কারন, আমি যে প্রকৃতি ভালবাসি।

সব পোস্ট দেখুন

1
মন্তব্য

avatar
1 মন্তব্য
0 উত্তর
0 ফলোয়ার
 
সর্বাধিক প্রতিক্রিয়া মন্তব্য
হটেস্ট মন্তব্য
  সাবস্ক্রাইব  
নতুন পুরনো সেরা ভোট
নোটিফিকেশন পান
Jakir Hossain
অতিথি
Jakir Hossain

ভ্রমণ বন্ধু <3